২০২৪ সালে ১১টি ৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা আইডিয়া, মাসে আয় লক্ষাধিক টাকা ।

আপনি কি ৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা সম্পর্কে আইডিয়া নিতে চান ? তাহলে আর্টিকেলটা শুধু আপনার জন্য।

আপনার কাছে যদি ত্রিশ হাজার টাকার মতো পুঁজি থাকে। এ  ক্ষেত্রে আপনি চিন্তাভাবনা করছেন কি ব্যবসা করবেন ?

চিন্তার কোন কারণ নেই । বর্তমানে এমন কিছু লাভজনক ব্যবসা রয়েছে যে ব্যবসা গুলো ৩০ হাজার টাকা দিয়ে খুব সহজে শুরু করতে পারবেন।

যদি আপনার ব্যবসা করার প্রবল ইচ্ছা ও পরিশ্রম করার মানসিকতা থাকে তাহলে খুব সহজেই সফলতা লাভ করতে পারবেন।

তাই আপনাদের কথা ভেবে ৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা সম্পর্কে আইডিয়া দিব। পাশাপাশি  ব্যবসা করার খুঁটিনাটি বিষয়গুলো তুলে ধরব।

যাতে করে আপনি অল্প সময়ে সফলতার উচ্চ শিখরে পৌঁছতে পারেন। এজন্য  আপনাকে মনোযোগ সহকারে এ আর্টিকেলটি পড়তে হবে।

৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা

Table of Contents

৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা ২০২৪

আমি এখানে ঐ সমস্ত ব্যবসা সম্পর্কে আলোচনা করব যে ব্যবসা করল খুবই লাভজনক এবং অল্প সময়ে সফলতা লাভ করতে পারবেন।

তাই ব্যবসা করার জন্য যে সমস্ত নিয়ম বলা হবে ঐ সমস্ত নিয়ম পরিপূর্ণভাবে ফলো করার চেষ্টা করব। চলুন আলোচনা শুরু করা যাক।

১. রেডিমেড পোশাকের ব্যবসা ।

বর্তমানে এই ব্যবসাটি অনলাইনে করা বেশি সুবিধাজনক হবে। কেননা পুঁজি  অল্প টাকা। সরাসরি ভাবে এই পুঁজি দিয়ে শুরু করা কষ্টকর হবে।

পুঁজি আরও বেশি লাগবে। ৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা হিসেবে অনায়াসে এ ব্যবসা শুরু করতে পারবেন।
রেডিমেড পোশাক বলতে আমরা বুঝি :

  • টি শার্ট
  • থ্রি পিস
  • প্যান্ট
  • পাঞ্জাবি
  • শাড়ি ইত্যাদি।

ইচ্ছা করলে এসব গুলা আইটেম নিয়ে ব্যবসা করতে পারেন। তবে বেটার হবে যে কোন একটি আইটেম নিয়ে ব্যবসা করা। এতে দ্রুত সফলতা লাভ করতে পারবেন।

কাপড়গুলো অবশ্যই আপনি পাইকারি মার্কেট থেকে সংগ্রহ করবেন। খুব কম দামে পেয়ে যাবেন।

ব্যবসা করার নিয়ম

  1. সর্বপ্রথম আপনাকে মার্কেট নিয়ে গবেষণা করতে হবে।
  2. সবচেয়ে যে পণ্যের চাহিদা বেশি ঐ পন্য নিয়ে ব্যবসা করার চেষ্টা করবেন।
  3. প্রতিযোগীদের নিয়ে গবেষণা করবেন। অর্থাৎ তারা কিভাবে বেচাকেনা করে এগুলো ফলো করবেন।
  4. অনলাইনে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে ভালোভাবে মার্কেটিং করতে হবে।
  5. আশা করি আপনি এই অল্প পুঁজি দিয়ে খুব সহজে  চমৎকার ব্যবসাটি অনলাইনের মাধ্যমে করতে পারবেন।

মার্কেটিং এর ব্যাপারে অনেক গুরুত্ব দেওয়া।

একটি ব্যবসায় সফলতার পেছনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে মার্কেটিং। আপনার মার্কেটিং যত বেশি ভালো হবে। তত দ্রুত সফলতা লাভ করতে পারবেন।

মার্কেটিং বর্তমান সময়ে দুইভাবে করা যায়। টাকা খরচ করে ও টাকা ছাড়া।
বর্তমান সময়ে ফ্রি মার্কেটিং এতটা সফলতা পাওয়া যায় না।

যতটা টাকা খরচ করে মার্কেটিং এ সফলতা পাওয়া যায়। facebook , instagram ,  টুইটার ইত্যাদিতে মার্কেটিং করতে পারেন।

আমাদের দেশে ফেসবুকে মার্কেটিং অনেক সহজ। খুব দ্রুত সফলতা পাওয়া যায়। ফেসবুকের মাধ্যমে প্রচার প্রসার করার জন্য আপনি অভিজ্ঞ লোকের মাধ্যমে বুস্ট করাতে পারেন।

আশা করি উপরোক্ত নিয়মে ব্যবসা করার চেষ্টা করবেন। তাহলে খুব দ্রুত সফলতার উচ্চ শিখরে পৌঁছে যাবেন।

আরো পড়ুন বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসার ১৬টি আইডিয়া ২০২৪

২.৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা হলো মৌসুমী ফলের ব্যবসা।

ফল সকলের কাছে জনপ্রিয় খাবার। এই কারণে এটা খুবই চাহিদাপূর্ণ একটি পণ্য। দিন যত এগোচ্ছে ফল এর চাহিদা তত বেড়েই চলছে। তাই আপনি মৌসুম অনুযায়ী ফলের ব্যবসা করতে পারেন।

মৌসুম বলতে আমরা বুঝি বিভিন্ন মৌসুমে বিভিন্ন রকম ফলের ব্যবসা করা। অর্থাৎ গ্রীষ্মকালে কাঁঠাল , আম , জাম , আপেল ইত্যাদি এরকম ফলের ব্যবসা করা।

আরেক মৌসুমে অন্য ফল বিক্রি করা। আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন।

ফলের ব্যবসা করার নিয়ম

  • সর্বপ্রথম আপনাকে তাজা তাজা ফল সংগ্রহ করতে হবে ।
  • পাইকারি মার্কেট থেকে ফল সংগ্রহ করতে হবে। কেননা পাইকারি বাজারে তুলনামূলক কম মূল্যে পাওয়া যায়।
  • লোক যাতায়াত ও লোক সমাগম স্থানে এই দোকান দেওয়া। অর্থাৎ বাজার , শহরতলীয়, বাস স্টেশন , রেল স্টেশন ইত্যাদি এরকম লোকসমাগম স্থানে দোকান দেওয়া।
  • গ্রাহকদের সাথে সবসময় ভালো ব্যবহার করা।

উপরোক্ত নিয়মে  ব্যবসা করলে মাত্র ৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা হিসেবে অনায়াসে এ ব্যবসা শুরু করতে পারবেন।

৩. দেশি মুরগির ব্যবসা

দেশি মুরগি খুবই জনপ্রিয় খাবার। বয়লার মুরগির থেকে দেশি মুরগির চাহিদা অনেক বেশি। দিন দিন এর চাহিদা বেড়েই চলছে। তাই এই ব্যবসা আপনি খুব অনায়াসে শুরু করতে পারেন।

এ ব্যবসা করার নিয়ম

  • সর্বপ্রথম আপনাকে মুরগি লালন পালন করার জন্য একটি ঘর তৈরি করতে হবে।
  • এরপর ছোট ছোট বাচ্চা সংগ্রহ করতে হবে দেশী মুরগীর । অথবা আপনি চাইলে বাচ্চা ফুটিয়ে নিতে পারেন।
  • অবশ্যই ঘরকে ভালোভাবে সুরক্ষিত করে তৈরি করতে হবে।
  • পাশাপাশি এমন ভাবে ঘর তৈরি করতে হবে যাতে করে ঘরের মধ্যে পর্যাপ্ত বাতাস পাওয়া যায়। এতে মুরগির জন্য খুবই উপকারী হবে।
  • এরপর খাবার ক্রয় করে নিয়মিত খাবার দিতে হবে।
  • এভাবে কিছুদিন লালন-পালন করার পর মুরগি গুলো খুব দ্রুত বড় হয়ে যাবে।

দেশি মুরগির মধ্যে লাভ প্রচুর হয়। তাই দেরি না করে আজ এই চমৎকার ব্যবসা শুরু করে দিন।

৪. ৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা হলো মোবাইল সার্ভিসিং ব্যবসা

মোবাইল সার্ভিসিং খুবই জনপ্রিয় ব্যবসা। পাশাপাশি এটা অনেক চাহিদা পূর্ণ ব্যবসা। কেননা বর্তমানে সকালের হাতেই মোবাইল রয়েছে।

কোন না কোন প্রবলেম দেখা যায়। ফলে সার্ভিসিং এর প্রয়োজন পড়ে। তাই এই ব্যবসাটা ধীরে ধীরে আরো জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

ভবিষ্যতে এর চাহিদা আরো দ্বিগুণ বেড়ে যাবে। এ ব্যবসায় লাভ অনেক বেশি। তাই এই ব্যবসাটি আজই শুরু করে দিন।

এ ব্যবসা করার নিয়ম

  • সর্বপ্রথম আপনাকে মোবাইল সার্ভিসিং এর উপর কোর্স করতে হবে। যাতে করে আপনি সার্ভিসিং এর ব্যাপারে দক্ষ হয়ে ওঠেন।
  • একটি দোকান ভাড়া নিতে হবে।
  • দোকানটা এমন একটি স্থানে ভাড়া নিবেন। যে স্থানে লোক সমাগম বেশি হয়। যেমন : শহর , শহরতলী , বাজার , বাসস্ট্যান্ড , রেল স্টেশন ইত্যাদি।
  • সার্ভিসিং করার জন্য বিভিন্ন যন্ত্রপাতি ক্রয় করতে হবে।
  • বিভিন্ন প্রয়োজনীয় পার্টস ক্রয় করতে হবে।

৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা হিসেবে অনায়াসে এ ব্যবসা শুরু করতে পারবেন।

এ ব্যাপারে সফল হওয়ার জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কথা হলো : দক্ষতার সাথে মোবাইল সার্ভিসিং করতে হবে।

এতে করে ধীরে ধীরে আপনার প্রসিদ্ধি বেড়ে যাবে। ফলে আপনি প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন।

৫. ডিমের ব্যবসা

আমাদের দেশের প্রতিটা মানুষ ডিম খেতে অনেক পছন্দ করে। ডিম জনপ্রিয় খাবার হিসেবে প্রসিদ্ধি লাভ করেছে।

দিন দিন ডিমের চাহিদা বেড়েই চলছে। ভবিষ্যতে এর চাহিদা দ্বিগুণ বেড়ে যাবে। তাই এই চমৎকার ব্যবসাটি করতে পারেন।

ডিমের ব্যবসা করার নিয়ম

  • ডিম সংগ্রহ করতে হবে।
  • দুইভাবে ডিম সংগ্রহ করতে পারেন। সরাসরি মুরগির ফার্ম দিয়ে ডিম সংগ্রহ করতে পারেন।
  • অথবা ফার্ম মালিকদের কাছ থেকে পাইকারি দামে ডিম ক্রয় করে তা সাপ্লাই দিতে পারেন।
  • এই দুই পদ্ধতিতে ডিম সংগ্রহ করে ডিমের ব্যবসা করতে পারেন।

দুনো পদ্ধতিতেই ডিমের ব্যবসা অনেক লাভজনক। তাই দেরি না করে আজই ৩০ হাজার টাকা দিয়ে শুরু করতে পারেন।

৬. মধু চাষের ব্যবসা

৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা

মধু অনেক উপকারী খাবার। অনেক চাহিদা পূর্ণ খাবার। মধু আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকার। সম্পূর্ণ খাঁটি মধুর অনেক চাহিদা রয়েছে।

দিন দিন এর চাহিদা আরো বাড়বে। তাই আপনি ৩০ হাজার টাকা দিয়ে ব্যবসা খুব সহজেই শুরু করতে পারেন।

এ ব্যবসা করার নিয়ম

  • সর্বপ্রথম আপনাকে মধু চাষের জন্য ট্রেনিং নিতে হবে।
  • এরপর আপনাকে মৌমাছি ক্রয় করতে হবে। মোটামুটি পাঁচ থেকে ছয় হাজার টাকা খরচ হতে পারে।
  • মধু সংগ্রহ করার জন্য মৌমাছির খাঁচা তৈরি করতে হবে।
  • এরপর আনুষঙ্গিক বিভিন্ন খরচ হতে পারে।
  • মধু সংগ্রহ করার জন্য বিভিন্ন বাগান অথবা সরিষার ক্ষেতের আশপাশে যেতে হবে।
  • এরপর আপনাকে মধু বিক্রি করার জন্য মার্কেটিং করতে হবে। মধু আপনি অনলাইনে বিক্রি করতে পারেন আবার সরাসরি বিক্রি করতে পারেন। তবে বর্তমানে অনলাইনে বিক্রি করা খুবই সহজ।

মধু চাষের ব্যবসায় লাভ অনেক বেশি। তাই দেরি না করে আজ এই চমৎকার ব্যবসাটি শুরু করার চিন্তাভাবনা করে দেন।

৭. শাকসবজি চাষ করতে পারেন ।

তাজা তাজা শাকসবজি খেতে প্রতিটি মানুষ পছন্দ করে। শাকসবজির অনেক চাহিদা রয়েছে। কখনো এর চাহিদা কমবে না। তাই আপনি শাকসবজি চাষ করতে পারেন। ৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা হিসেবে অনায়াসে এ ব্যবসা শুরু করতে পারবেন।

চাষ করার নিয়ম

  • সর্বপ্রথম আপনাকে ভালো জমির ব্যবস্থা করতে হবে। যদি আপনার নিজের থাকে তবে ভালো কথা অন্যথায় ভাড়া নিতে।
  • এরপর আপনি মৌসুমী সবজি চাষ করবেন। যেমন : ঢেঁড়স , ধুন্দল ,শিম , শসা , ফুলকপি , লাউ ,বাঁধাকপি ইত্যাদি।
  • চাষের মধ্যে সফলতা লাভ করার জন্য সরকারিভাবে কোন একটি কোর্স করতে পারে।
  • নিয়মিত সার কীটনাশক ও পানি দিয়ে পরিচর্যা করতে হবে।
  • দুইভাবে আপনি বিক্রি করতে পারবেন।
  • সরাসরি নিজে বিক্রি করতে পারবেন খুচরা হিসাবে। অথবা পাইকারি হিসেবেও বিক্রি করতে পারবেন।

তাহলে আপনি খুব দ্রুত সফলতা লাভ করতে পারবেন। তাই দেরী না করে আজই এই চমৎকার ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন।

৮. ৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা হলো লবণের ব্যবসা ।

লবণ খুবই চাহিদা পূর্ণ পণ্য। লবন ছাড়া রান্নাই হয় না। তাই লবনের চাহিদা কখনো কমবে না। ৩০ হাজার টাকা দিয়ে অনায়াসে এ ব্যবসা শুরু করতে পারবেন। এই ব্যবসা ঝুঁকি অনেক কম।

লবনের ব্যবসা শুরু করার নিয়ম

  • ভালো ভালো কোম্পানি থেকে লবণ সংগ্রহ করবেন পাইকারি হিসেবে। যেমন মোল্লা সল্ট , রাজপুর সল্ট ইত্যাদি।
  • এরপর নিজে পাইকারি হিসেবে বিভিন্ন দোকানের দোকানে সাপ্লাই দিতে পারেন। আবার চাইলে খুচরা হিসেবেও বিক্রি করতে পারবেন।
  • তবে সবচেয়ে লাভজনক হলো পাইকারি হিসেবে বিভিন্ন দোকানে দোকানে সাপ্লাই দেওয়া।

আশা করি বিষয়টি আপনি ভালভাবে বুঝতে পেরেছেন।

৯. কবুতর লালন পালনের ব্যবসা

৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা
৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা

কবুতরের ব্যবসা খুবই লাভজনক। কবুতর খুবই চাহিদা পূর্ণ একটি পাখি। এ ব্যবসা করে খুবই দ্রুত সফলতা লাভ করা যায়।

পাশাপাশি কবুতর লালন পালন করতে জায়গা খুব কম লাগে। ৩০০০০ টাকা দিয়ে এই ব্যবসা অনায়াসে করা যাবে।

কবুতর লালন পালন করার নিয়ম

  • সর্বপ্রথম আপনাকে কবুতরের জন্য ঘর তৈরি করতে হবে।
  • এরপর বিভিন্ন প্রজাতির কবুতর সংগ্রহ করতে হবে।
  • এরপর নিয়মিত খাবার দিতে হবে।
  • কবুতরের বাচ্চা বিক্রি করে খরচ উঠাতে পারবেন।

মোট কথা কবুতরের ব্যবসা অনেক লাভজনক। তাই দেরি না করে এই লাভজনক ব্যবসাটি আজই শুরু করেন।

১০. ফুড ভ্যান এর ব্যবসা করতে পারেন

৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা

বর্তমান সময়ে অনেক জনপ্রিয় ব্যবসা হিসেবে প্রসিদ্ধি লাভ করেছে। এই ব্যবসা অনেক লাভ করা যায়। গ্রাহক চাহিদা প্রচুর  রয়েছে।

৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা হিসেবে অনায়াসে এ ব্যবসা শুরু করতে পারবেন। এ ব্যবসা  যে সমস্ত আইটেম নিয়ে করা যায়।

  • কাবাব
  • বার্গার
  • চিকেন ফ্রাই
  • টিক্কা
  • ফুচকা চটপটি ইত্যাদি

এ ব্যবসা করার নিয়ম

  • ভালো একটি স্থান নির্বাচন করতে হবে।
  • শহর, শহরতলী, বাজার, স্কুল কলেজ, রেল স্টেশন, বাস স্টেশন ইত্যাদি এরকম লোক সমাগম স্থান নির্বাচন করতে হবে।
  • একটি ভ্যান তৈরি করতে হবে।
  • খাবার তৈরি করার জন্য বিভিন্ন আসবাবপত্র সংগ্রহ করতে হবে।
  • কাঁচামাল সংগ্রহ করতে হবে।
  • আকর্ষণীয় ভাবে খাবার তৈরি করতে হবে।

তাহলে খুব অল্প সময় আপনি প্রসিদ্ধি লাভ করতে পারবেন। আশা করি বিষয়টি ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন।

১১. চা পাতার ব্যবসা

চা খুবই জনপ্রিয় খাবার। ছোট বড় সকলেই চা খেতে অনেক পছন্দ করে। চা এর ব্যবসা অনেক চাহিদাপূর্ণ। তাই ৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা হিসেবে অনায়াসে এ ব্যবসা শুরু করতে পারবেন।

এ ব্যবসা করার নিয়ম

  • সর্বপ্রথম আপনাকে চা পাতার পাইকারি বাজারগুলো থেকে চা পাতা সংগ্রহ করতে হবে।
  • উন্নত মানের চা পাতা সংগ্রহ করার চেষ্টা করবেন।
  • এরপর বিভিন্ন খুচরা দোকানগুলোতে পাইকারি হিসেবে বিক্রি করবেন।
  • এজন্য অবশ্য আপনাকে মার্কিং কৌশল জানতে হবে। তাহলে এ ব্যবসা খুব দ্রুত সফলতা লাভ করতে পারবেন।

আশা করি আপনি ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন। এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানতেন নিচের আর্টিকেল করতে পারেন।

পরিশেষে বলবো : উপরে ৩০ হাজার টাকায় ব্যবসা সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে তথ্য দিলাম। আশা করি আপনি ভালোভাবে একটি ধারনা পেয়েছেন।

অতএব আপনার যে ব্যবসাটি পছন্দ হয় ওই ব্যবসাটি বেছে নিতে পারেন। এই সম্পর্কে কোন প্রশ্ন থাকলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। পাশাপাশি বন্ধু-বান্ধবদের সাথে শেয়ার করবেন। ধন্যবাদ।

FAQ

30 হাজার টাকা দিয়ে কি ব্যবসা করা যায় ?

নানা রকম ব্যবসা 30 হাজার টাকা দিয়ে করা যায় । যেমন :
১. লবণের ব্যবসা
২. চা পাতার ব্যবসা
৩. কবুতর লালন পালনের ব্যবসা
৪. শাকসবজি চাষ করা
৫. ফুড ভ্যান এর ব্যবসা
৬. মোবাইল সার্ভিসিং
৭. মধু চাষের ব্যবসা
৮. রেডিমেড পোশাকের ব্যবসা ।
৯. ডিমের ব্যবসা
১০. মৌসুমী ফলের ব্যবসা।
১১. দেশি মুরগির ব্যবসা

আমি সবসময় নতুন জিনিস শিখতে এবং ছড়িয়ে দিতে পছন্দ করি। তাই সকল ধরনের বিজনেস আইডিয়া সম্পর্কিত নতুন বিষয় তুলে ধরাই আমার মূল লক্ষ্য।

Leave a Comment